জাতীয় মানুষের কাছে কখনও ভুলবার্তা দিতে চাই না: ডা.জাফরুল্লাহ চৌধুরী

মানুষের কাছে কখনও ভুলবার্তা দিতে চাই না: ডা.জাফরুল্লাহ চৌধুরী

নিজ বাসায় আইসোলেশনে

-

নিউজবাংলা২৪ ডেস্ক: গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।সম্প্রতি তিনি করোনা আক্রান্ত হয়ে নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।আপাদমস্তক দেশপ্রেমিক সিনিয়র এই নাগরিককে প্রশ্ন করা হয়েছিল-কেবিন বুকড থাকার পরও আপনি হাসপাতালে না গিয়ে বাসায় আছেন কেন?

স্মিতহাস্যে তিনি বলেন,‘আমি তো ডাক্তার। করোনা রোগ নিয়েও কাজ করছি। আমি জানি, করোনা রোগীর কোন সময় হাসপাতালে যেতে হবে আর কোন সময় বাসায় থাকতে হবে। করোনা শনাক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে চলে যেতে হবে— এটি একেবারেই ঠিক নয়।

আমি যদি হাসপাতালে গিয়ে কেবিনে উঠি তাহলে জনগণের কাছে ভুল বার্তা যাবে যে, শনাক্ত হাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে চলে যেতে হয়। করোনা রোগীদের জন্যে আমি ভুল বার্তা দিতে চাই না। ফলে, আমার জন্যে ঢামেকে কেবিন বুকিং দিয়ে রাখা সত্ত্বেও আমি হাসপাতালে না গিয়ে বাসায় আছি। এটাই করোনা রোগের সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি।

সবার ক্ষেত্রে এটাই করা উচিত। এমনিতেই হাসপাতালে জায়গা নেই। যাদের দরকার নেই তারাও যদি হাসপাতালে চলে যাই, তাহলে তো সংকট আরও বাড়বে।’

জানতে চাওয়া হয়েছিল, আপনি প্লাজমা থেরাপি কোথায় নিলেন? তিনি গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে প্লাজমা থেরাপি নিয়েছেন বলে জানান। সেখানে প্লাজমা থেরাপির ব্যবস্থা আছে? প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন,

‘থাকবে না কেন? আমরা একটা হাসপাতাল বানিয়েছি সেই হাসপাতালে যদি আমাদের নিজেদের চিকিৎসাই করতে না পারি, তাহলে তা থাকারই কোনো অর্থ নেই। যে হাসপাতালে আমরা নিজেদের চিকিৎসা করতে পারব না, সেই হাসপাতাল রাখব কেন? সেই হাসপাতাল তৈরি করব কেন? আমি আমার সব রকমের চিকিৎসা আমাদের হাসপাতালে করি।

আজ থেকে ১৮ বছর আগে যখন আমার চোখের অপারেশন করা দরকার হয়েছিল তখন আমি তা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে করিয়েছিলাম। তখন আমি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদস্য ছিলাম। সেসময় পৃথিবীর যে কোনো দেশে, পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত দেশের উন্নত হাসপাতালটিতেও আমি বিনা পয়সায় চোখের অপারেশন করাতে পারতাম। কিন্তু, আমি তা করাইনি। জনগণের মাঝে কখনোই কোনো ভুল তথ্য বা ভুল বার্তা দিতে চাইনি। চোখের অপারেশন আমি আমাদের হাসপাতালেই করিয়েছি এবং বাংলাদেশের মানুষকে বুঝাতে চেয়েছি যে এই অপারেশন বাংলাদেশেও করা যায় এবং তা খুবই মানসম্পন্ন।

প্রায় ১৮ বছর আগে আমি চোখে যে অপারেশন করিয়েছিলাম তা বাংলাদেশের হাসপাতাল তথা আমাদের হাসপাতাল সফলভাবে করেছিল। আজকে পর্যন্ত আমার চোখে কোনো সমস্যা নাই। আমাকে চশমাও ব্যবহার করতে হয় না।

আমার আমেরিকা-ইউরোপের বন্ধুরা অনেকবার উদ্যোগ নিয়ে বলেছে, চলে আসো। বিনা খরচে আমরা তোমার কিডনি ট্রান্সপ্লান্টের ব্যবস্থা করবো। রাজি হইনি। কারণ, আমি একা সুবিধা নেব আর বাংলাদেশের সব মানুষ বঞ্চিত থাকবে, তা হতে পারে না।’

(ডেইলি স্টারের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী ।)

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ সংবাদ

মানিকগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদের সাহিত্যসভা

মানিকগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদের প্রথম সাহিত্যসভা সংগঠনের পুরানা পল্টনস্থ কার্যালয়ে বুধবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয়।পরিষদের সভাপতি, লেখক ও গবেষক...

বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় সবাই বেকসুর

নিউজবাংলা ডেস্ক: রামমন্দির নির্মাণ শুরু হয়ে গিয়েছে। অযোধ্যার সেই বহুবিতর্কিত স্থলে, ২৮ বছর আগে বাবরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় এ বার বেকসুর...

সড়ক দুর্ঘটনার কবলে অভিনেত্রী শাহনাজ খুশি, দুমড়েমুচড়ে গেছে গাড়ি

নিউজবাংলা ডেস্ক: শুটিংয়ে ফিরতে গিয়ে ভয়ঙ্কর সড়ক দুর্ঘটনার মুখে পড়েছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাহানাজ খুশি।তবে অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন...

পরীক্ষা না নিয়ে অটোপ্রমোশন দেয়ার কথাও ভাবছে সরকার

নিউজবাংলা ডেস্ক: করোনাকালীন শিক্ষার বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ বিষয়টি তুলে ধরেন।বার্ষিক পরীক্ষাসহ অন্যান্য...

বাড়ি ফেরা হলো না, আদালত থেকে কারাগারে মিন্নি

নিউজবাংলা ডেস্ক: অবশেষে ফাঁসির দণ্ড মাথায় নিয়ে আদালত থেকে কারাগারে গেলেন বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার সাত নম্বর আসামি...

ধর্ষণের শিকার তরুণীর লাশ মাঝরাতে জোর করে পুড়িয়ে দিল পুলিশ

নিউজবাংলা ডেস্ক: ভারতের উত্তরপ্রদেশের হাথরসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর চিকিৎসাধীন যে তরুণী প্রাণ হারিয়েছেন, রাজ্যটির পুলিশ পরিবারের সম্মতি ছাড়াই...

Must read

মানিকগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদের সাহিত্যসভা

মানিকগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদের প্রথম সাহিত্যসভা সংগঠনের পুরানা...

বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় সবাই বেকসুর

নিউজবাংলা ডেস্ক: রামমন্দির নির্মাণ শুরু হয়ে গিয়েছে। অযোধ্যার সেই বহুবিতর্কিত...

আপনার পছন্দের সংবাদRELATED
Recommended to you